শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কিং খালিদ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর ও আভা চেম্বারের মহাসচিবের সাথে জাবেদ পাটোয়ারীর বৈঠক ফরিদগঞ্জের সন্তোষপুরের সন্ত্রাসী হামলায় গ্রেফতার দুই, তিনটি গরু উদ্ধার সোশ্যাল মিডিয়ায় ফোন নম্বর-ইমেইল না রাখার পরামর্শ বিটিআরসির আটক শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড ফরিদপুরের বরকত-রুবেলের ৫৭০৬ বিঘা জমি ও ৫৫ গাড়ি ক্রোকের নির্দেশ ময়মনসিংহ সিটির ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে আইপি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করোনার সবশেষ খবর, ২৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রেলওয়ে নিরাপত্তা ও শিডিউল রক্ষায় ডাবল লাইন নির্মাণ জরুরী: রেলপথ মন্ত্রী ময়মনসিংহ কর্ম এলাকার সমাপ্তি ও বাস্তবায়ন কমিটি গঠন
Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১, ০৯:২২ PM
  • ২১ বার পড়া হয়েছে

সব হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে কয়েকশ মানুষ

রাজধানীর মানিকনগরে মুগদা এলাকায় ‘কুমিল্লা পট্টিতে’ আগুনের ঘটনায় প্রায় শতাধিক ঘর পুড়েছে। এতে নারী শিশুসহ বস্তির কয়েকশ পরিবার সব হারিয়ে এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। তবে আগুনে কেউ মারা যায়নি বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

রবিবার বিকাল পৌনে তিনটার দিকে এ আগুনের সূত্রপাত হয় জানিয়ে ফয়ার সার্ভিস কর্মকর্তা ডিউটি অভিসার) সলিম আহমেদ বলেন, খিলগাঁও-মানিকনগরে উত্তর ওয়াসা রোডে কুমিল্লা পট্টির একটি টিনশেড ঘর থেকে ওই আগুনের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৯টি ইউনিট সেখানে গিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় বিকাল পৌনে ৫টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। তবে ততক্ষণে সেখানকার প্রায় একশ টিনশেড ঘরের অধিকাংশই পুড়ে যায়। তবে আগুন লাগার কারণ বা ক্ষয়ক্ষতির আর্থিক পরিমাণ তাত্ক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা।

স্থানীয় সূত্রমতে, মুগদা কবরস্থানের পাশে কুমিল্লা পট্টিতে প্রায় একশ ঘর কয়েকজন মালিক মিলে বস্তির আদলে তৈরি করেছেন। সেখানে শ্রমজীবী মানুষের সংখ্যা বেশি। আগুনে বস্তির অধিকাংশ ঘর পুড়ে গেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত লোকজন নানান সমস্যায় পড়েন। তবে ঢাকা জেলা প্রশাসন, সিটি কর্পোরেশন ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতারা তাদেরকে সহযোগিতায় এগিয়েছেন বলে জানা গেছে।

বস্তিবাসী জানান, সেখানে দুইতলা ও একতলা টিনশেডের ঘর ছিল। এছাড়া একটি রিকশার গ্যারেজও ছিল। ছুটির দিন হওয়ায় অধিকাংশ মানুষই ঘরে ছিলেন। আগুন লাগার পরই তারাও পানি দেওয়ার কাজ শুরু করেন। ওই বস্তির জায়গার মালিক অন্তত ১১ জন।

এদিকে, ঘটনার পরই স্থানীয় সাংসদ সাবের হোসেন চৌধুরীসহ পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘর হারানোদের জন্য সাংসদের পক্ষ থেকে খাওয়াসহ অন্যান্য ব্যবস্থার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার সাহা বলেন, আগুনে হতাহতের কোনো খবর এখনও আমরা পাইনি। ঘটনার পরপরই এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখতে তৎপরতা চালানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

এই জাতীয় আরো নিউজ

© All rights reserved © 2020 bd-bangla24.com

Theme Customized By Subrata Sutradhar