শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০০ অপরাহ্ন
Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১, ০৮:১০ PM
  • ৩১ বার পড়া হয়েছে

মঠবাড়িয়ার জেলেরা ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে নামছেন গভীর সমুদ্রে

প্রতিনিধি, মঠবাড়িয়া :

টানা ৬৫ দিনের সরকার ঘোষিত নিষেধাজ্ঞার পর পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার উপকূলীয় জেলেরা গতকাল শনিবার বিকাল থেকে ইলিশ শিকারে গভীর সাগরে জাল ফেলতে ছুটছেন ট্রলারেযোগে। উপজেলার বড়মাছুয়া, সাপলেজা, তুষখালী, বেতমোরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের জেলেরা সাগরে যাচ্ছেন ইলিস আহরণের জন্য। উৎসব মুখর পরিবেশে এসব অঞ্চলের শতাধিক মৎস্য ঘাট থেকে বঙ্গোপসাগরে রওনা দিচ্ছেন জেলেরা এমনটাই জানিয়েছেন এলাকার মৎস্য আড়তদাররা।

গত শুক্রবার (২৩ জুলাই) নিষেধাজ্ঞা শেষ হলেও বৈরী আবহাওয়া ও গভীর সমুদ্রে সংকেত থাকার কারনে উপকূলের জেলেরা গত দুইদিন ধরে গভীর সমুদ্রে যেতে পারেনি। জেলেরা ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে দলবেধে বেড়িয়ে পড়ছেন ইলিশ পাওয়ার আশায় গভীর সমুদ্রে। দীর্ঘদিন নিষেধাজ্ঞার ফলে আগের চেয়ে বেশী ইলিশ ধরা পড়বে সমুদ্রে এমনটাই জেলেদের প্রত্যাশা। এদিকে গভীর সমুদ্রে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বেকার জেলেসহ ফের কর্মব্যস্ত হয়ে পড়ছেন জেলে পল্লীর পরিবারগুলি। এতে সরগরম হয়ে উঠছে মৎস্য আড়তগুলো ও মৎস্য পল্লি। আড়ৎদারা তাদের আড়ৎ নতুন করে সাজিয়ে নিচ্ছেন। নতুন করে আবার ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলার পাইকারদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছেন ইলিশ বিক্রির জন্য। অপরদিকে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা বরফমিলগুলি আবারও সচল হয়ে উঠছে। উল্লেখ্য, ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিনের জন্য মাছ ধরার ওপর সরকার ঘোষিত নিষেধাজ্ঞা ছিল।

সমুদ্রগামী একাধিক জেলের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনার প্রাদুর্ভাবে ও ৬৫ দিনের সমুদ্রে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞার কারণে বেকার বসে থেকে ধার-দেনা করে চলতে হয়েছে সমুদ্র উপকূলীয় জেলেদের। তাইতো জেলেরা নতুন করে বিনিয়োগ করে সমুদ্রে যাওয়ার প্রস্তুতি নেয়। জেলেরা জানিয়েছেন, করোনার প্রকোপে ধারদেনা শেষে সমুদ্রে নামার পূর্বে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে সমুদ্রে নামছেন অনেকেই।

মৎস্য বিভাগ বলছে, নিষেধাজ্ঞায় সাগর ও তার মোহনায় সব ধরনের মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞা ছিল। এ সময় জেলেরাও মাছ ধরা থেকে বিরত ছিল। কয়েকদিন অপেক্ষা করলেই মিলবে কাংক্ষিত রূপালি ইলিশ। ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞার কারণে ক্ষতিপূরণ হিসেবে জেলেদের ৮৬ কেজি করে চাল বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। ৬৫ দিন পরিবার-পরিজন নিয়ে চলতে কষ্ট হলেও আবারও নিজ পেশায় ফিরতে পেরে খুশি জেলেরা।

পিরোজপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল বারী বলেন, চলতি বছরের (২০মে – ২৩ জুলাই পর্যন্ত) ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সময়ে জেলেরা মাছ না ধরায় নদী ও সাগরে মাছের উৎপাদন বাড়ছে বলে আমরা বিশ্বাস করি। ফলে নদীতে প্রচুর ইলিশ পড়া শুরু হয়েছে, আশা রাখছি সাগরেও ঝাঁকে ঝাঁকে মিলবে ইলিস। আজ থেকে নিবন্ধিত জেলেদের মাছ ধরতে যেতে আর কোনো বাঁধা নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

এই জাতীয় আরো নিউজ

© All rights reserved © 2020 bd-bangla24.com

Theme Customized By Subrata Sutradhar