শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১১ অপরাহ্ন
Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১, ০৮:১৫ PM
  • ২৬৭ বার পড়া হয়েছে

*সুনামই হচ্ছে আপনার সর্বস্ব*

পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং – (চতুর্থ পর্ব)

আপনি সবার নিকট আবেদনময়ী হতে চাইলে কারো নিকট সেটা না হওয়ার ঝুঁকি নিচ্ছেন। পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ কাজ হচ্ছে একটা ক্ষুদ্র অংশেই প্রথমে মনোনিবেশ করা। যে অংশ এখনো কিছুটা দৃষ্টির আড়ালে আছে এমন অডিয়েন্সকে ফোকাস করা। যে পথে প্রতিযোগিতা কম সেই পথ ধরেই এগুতে থাকুন। অনেকের ভুল ধারণা আছে অডিয়েন্সের ক্ষুদ্র অংশে দৃষ্টি নিবদ্ধ করলে তাঁর প্রভাবের আওতা কমে যাবে। ছোট অডিয়েন্সকে সন্তুষ্ট করার মাধ্যমেই বড় অডিয়েন্সকে জয়ের জন্য ভিড়ের মধ্যে দাঁড়ানোর অনুশীলন হয়। পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের চূড়ান্ত ধাপে “সুপারস্টারের” পরিণত হওয়ার আগে আপনাকে অনেকগুলো ধাপ অতিক্রম করতে হবে (Elizabeth Harr and others , “The Visible Expert”, 2014)। প্রথম ধাপটি হচ্ছে ঘরোয়া বিশেষজ্ঞ (Resident Expert) হওয়া। আপনি যেখানে কাজ করেন সেই প্রতিষ্ঠানের আপনার অবস্থান সুদৃঢ় করা থেকেই শুরু করতে হবে। যদি খ্যাতিমান অধ্যাপক হতে চান তাহলে শুরুটা করতে হবে আপনি যে বিভাগে শিক্ষকতা করছেন সেই বিভাগের শিক্ষার্থী এবং সহকর্মীদের মধ্যে আপনার বিশেষত্ব দিয়ে সর্বোচ্চ স্থান দখল করার মধ্য দিয়ে। দ্বিতীয় স্তরটিকে বলা হয় স্থানীয় হিরো(Local Heros) । আপনি আপনার নিজস্ব চাকরিস্থলের বাইরে কথা ও লেখার মাধ্যমে পরিচিতি লাভ করবেন। তৃতীয় পর্যায় হচ্ছে উদীয়মান স্টারে(Rising Stars) পরিণত হওয়া । তখন মোটামুটি সবাই আপনাকে চিনে যাবে। চতুর্থ পর্যাযটা হচ্ছে ইন্ডাস্ট্রি রক স্টারে (Industry Rock Stars) পরিণত হওয়া। আপনার খ্যাতি আন্তর্জাতিকভাবে ছড়িয়ে পড়বে। সর্বশেষ চূড়াটি হচ্ছে বৈশ্বিক সুপারস্টারে(Glonal Super Stars) পরিণত হওয়া। তখন আপনি আপনার নির্দিষ্ট গণ্ডি(niche) থেকে বেরিয়ে যাবেন। আপনি তখন আপনার নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে সম্মান পাবেন। শিক্ষক হিসেবে আপনি দৃশ্যমান এক্সপার্ট হতে চাইলে বই না লিখে কোন উপায় নেই। বই না লিখে খ্যাতিমান বিশেষজ্ঞ হয়েছেন অথবা দৃশ্যমান বিশেষজ্ঞ হয়েছেন এমন দৃষ্টান্ত কম। আপনাকে পাবলিক বক্তৃতায়ও পারদর্শী হতে হবে।

(এক্ষেত্রে একটি ব্যতিক্রমী উদাহরণ হচ্ছেন আমাদের জাতীয় অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক স্যার। স্যার জীবনে তেমন কিছু লিখেননি, ভালো বক্তৃতাও দেননি। স্যার তাঁর ছাত্রদের নিয়মিত ক্লাস নিয়ে বিমোহিত করেছেন এমনটিও ঘটেনি। রাজ্জাক স্যারের ব্র্যান্ডে (জীবন্ত এনসাইক্লোপিডিয়া) পরিণত হওয়া অনেকটাই তাঁর ব্যক্তিগত পড়াশোনা এবং উইজডম নির্ভর। স্যারের উজডম প্রকাশের একমাত্র বাহন ছিল অন্যের (সরদার ফজলুল করিম, আহমদ ছফা…) সাথে ব্যক্তিগত আলাপচারিতা। জ্ঞান সাধক আব্দুর রাজ্জাক গ্রিক দার্শনিক ডায়োজিনিস (৪১৩-৩২৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দ) এর মতোই ছিলেন অনেকটা। এই মহান দার্শনিকের জীবন ছিল বিচিত্র। আজও তাঁর গোটা জীবনটাই রূপ কাহিনীর মত। ডায়োজিনিস গ্রিকবাসীদের জ্ঞানের কথা শুনিয়েছেন। তবে কিছু লিখে যান নি। কথিত আছে ডায়োজিনিস সারা জীবন একটি পরিত্যক্ত চুঙ্গীর মধ্যে জীবন কাটিয়েছেন। বিয়ে-শাদী করেননি। এই সময় তার একমাত্র সম্পত্তি ছিল পানি খাওয়ার একটি মগ। তাও একদিন তিনি ভেঙে ফেললেন, যখন দেখলেন তার চুঙ্গীর পাশেই একদল ছেলে হাতে নিয়ে (আঁজলা ভরে) জল খাচ্ছে, তখন তিনি তাঁর একমাত্র সম্বল মাটির প্রিয় মগটি ভেঙ্গে ফেলে জগতের যাবতীয় বস্তু থেকে মুক্ত হন, সত্যিকারের নিঃস্বে পরিণত হোন। মহাবীর আলেকজান্ডার একদিন তাঁর সাথে দেখা করতে এসেছিলেন এবং জানতে চাইলেন, ‘আমি কি আপনার কোন উপকার করতে পারি?” তখন ডায়োজিনিস চুঙ্গীর পাশে সকালের রোদ পোহাচ্ছিল। ডায়োজিনিস সম্রাটের দিকে বিরক্ত হয়ে তাকিয়ে বললেন, “আপনি আমার সামনে দাঁড়িয়ে সকালের রোদটুকু আটকে রেখেছেন। সরে গিয়ে রোদটা ছেড়ে দিতে পারেন , তাতেই আমার উপকার হয়”।)

ডায়োজিনিসের যুগ শেষ হয়েছে আড়াই হাজার বছর আগে, রাজ্জাক স্যার এর দিনও শেষ। এখন ব্র্যান্ড হিসেবে স্বীকৃতি পেতে হলে নানা মাধ্যমে নিয়মিত লিখতে এবং বলতে হবে। বেশিরভাগ দৃশ্যমান বিশেষজ্ঞরা কেউ আপনার চেয়ে অনেক বেশি আলাদা নয়। অনেকেই (১০০০ বিশেষজ্ঞ ও তাঁদের সেবা ক্রেতাদের সাক্ষাৎকারে দেখা গেছে , The Visible Expert, ২০১৪) স্বীকার করেছেন তাঁরা নিজ নিজ ক্ষেত্রে সবচেয়ে জ্ঞানী অথবা স্মার্ট ব্যক্তি, তা নন। কেহই লেখক বা বক্তা হয়ে জন্মাননি, কেউই অস্বাভাবিক কোনো কারিশমা নিয়েও জন্মাননি। তাঁরা কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে পার্সোনাল ব্র্যান্ডে পরিণত হয়েছেন, নিজের ব্র্যান্ড নিজেই তৈরি করেছেন। বেশিরভাগ লোকেই ‘trial and error’ পদ্ধতিতে শিক্ষা গ্রহণ করেই এগিয়েছেন। প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন পথে তাঁদের নিজস্ব কৌশল ব্যবহার করে বহু দূর এগিয়েছে।

সব বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হওয়া সম্ভব নয়। পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের ক্ষেত্রে এটা একেবারেই বাস্তবসম্মত নয়। Al Ries Jack Trout এই কৌশলের নাম দিয়েছেন, ‘একটি খালি জায়গা দখল করা’ (to grab an unoccupied position)। অর্থাৎ ভিড়ের মধ্যে না যাওয়া। আমার লেখা “সংকটে মার্কেটিং” বইয়ে সুন্দরী মহিলাদের জন্য একটা উপদেশ রেখেছিলাম, যারা অনেক কষ্ট করে সেজেগুজে বিয়ে বাড়িতে যান তাঁদের জন্য পরামর্শ ছিল, “কখনোই কনের মঞ্চে গিয়ে বসবেন না”। কনের মঞ্চে সুন্দরীদের ভিড় থাকে । তাছাড়া ঐদিন সকলের দৃষ্টি নিবদ্ধ থাকে কনের প্রতি। কেউ আপনার দিকে তাকাবে না । আপনার কষ্ট করে সাজগোজ করার কোন মূল্যই পাবেন না। বিয়ে বাড়িতে গিয়ে এমন জায়গায় বসবেন যেখানে আর কোনো সুন্দরী নেই। সম্ভব হলে পুরুষদের বসার জন্য নির্ধারিত জায়গায় গিয়ে বসে পড়ুন,যেখানে আপনিই হবেন একমাত্র মহিলা, সবাই আপনাকেই দেখবে।

পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ে পথে যাত্রা শুরুর আগেই ঠিক করতে হবে আপনি কাদের নিকট পৌঁছাতে চান। অডিয়েন্স যত দ্রুত নিশ্চিত করা যাবে আপনার পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং এর গল্পটিও তত দ্রুত তৈরি করতে পারবেন । অডিয়েন্স নির্বাচনের পরেই আপনি বুঝতে পারবেন কি গল্প বলতে হবে এবং কোথায় বলতে হবে। আপনার লক্ষ্য যদি হয় আরো বড় চাকরি পাওয়া তাহলে অবশ্যই আপনাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে, বিশেষ করে LinkedIn -এ আপনার প্রোফাইল সংযুক্ত করতে হবে এবং অনবরত আপডেট দিতে হবে। আমেরিকায় ৯২ শতাংশ নিয়োগকারী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে উচ্চমানের প্রার্থী খুঁজে; এরমধ্যে ৮৭ শতাংশ এ কাজে LinkedIn ব্যবহার করে। আপনি যদি গ্রাফিক ডিজাইনার বা চিত্রশিল্পী হন তাহলে নিজের একটা ওয়েবসাইট খুলুন(Sean Gresh,2017)। মৌলিক বাজারজাতকরণের সমন্বিত যোগাযোগ (IMC) পদ্ধতি তৈরীরও প্রথম ধাপ হচ্ছে অডিয়েন্স সনাক্তকরণ । এই কাজটি সঠিকভাবে করতে পারলে পরবর্তী ধাপগুলো অনেক সহজ হয়ে যায়। শুধু অডিয়েন্স নির্বাচন করলেই হবে না। তাঁদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে। বিশেষ করে তাদের কমিউনিকেশন গ্রহণের এবিলিটি বা সামর্থ্য, যেটা অনেকাংশেই তাঁদের শিক্ষাগত যোগ্যতার উপর নির্ভর করে। তাঁদের লিসনিং বা মিডিয়া বিহেভিয়ার অর্থাৎ তাঁরা কোন মিডিয়াতে কত সময় ব্যয় করে, কোন্ সময়টা ব্যয় করে এবং কী ধরনের বাহন (সংগীত, নাটক, সিনেমা, টকশো, খেলাধুলা…) তাঁরা পছন্দ করে।

আপনি যে ক্ষেত্রে পার্সোনাল ব্র্যান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেতে চান সে ক্ষেত্রের নেতাকে খুঁজে বের করুন। তবে তাঁকে হুবহু অনুকরণ করবেন না। সফল লোকদের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করুন। তাঁদের ইমিটেড (imitate) করে তাঁদের চেয়ে ভালো কিছু একটা করার চেষ্টা করুন। পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমে আপনি মইয়ের ওপরে উঠবেন, তার জন্য যারা ইতোমধ্যেই ওখানে আছে তাদের ইনভেন্টরি তৈরি করুন। আপনার অঙ্গনের নেতৃস্থানীয়দের সাথে অনানুষ্ঠানিকভাবে মিশতে চেষ্টা করুন। আপনার ইপ্সিত ক্ষেত্র সম্পর্কে আরও তথ্য জানার জন্য চেষ্টা করুন এবং নেতৃস্থানীয়দের নিকট জানতে চান(Sean Gresh;2017)- কিভাবে আপনি এই পর্যন্ত এলেন? প্রথম থেকে শুরু করতে বললে আপনি এখন কি কি পদক্ষেপ নিবেন? এই শিল্পের ভবিষ্যৎ কী? আপনি কিভাবে সব কিছুর খবর রাখেন এবং আপ-টু- ডেট থাকেন? কোন পেশাদারী প্রতিষ্ঠান আছে কি যেখানে আমি যোগ দিতে পারি? এ ধরনের তথ্যভিত্তিক ইন্টারভিউয়ের মধ্য দিয়ে আপনার অঙ্গনের লিডাররাও আপনার পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং সম্পর্কে অনুমান করতে পারবেন, যা পরবর্তীতে আপনার কাজে আসতে পারে।

বাণিজ্যিক পণ্যের ব্র্যান্ডিংয়ের মতই আপনি নিজের জন্য একটি ইউনিক সেলিং প্রপোজিশন(USP) তৈরি করুন। যেমনটি বলেছেন আমেরিকার নর্থ ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর গ্লোবাল ব্র্যান্ডিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা Frank Cutitta, যিনি দীর্ঘদিন যাবত পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং কোর্সটি পড়াচ্ছেন, “you need to come up with very short, concise things to say – stories to tell- that frame your attributes in the right light”. যতটা পারেন নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করুন, মানুষের সাথে আপনার সম্পর্ক যত বাড়বে আপনার পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং ততবেশি স্বীকৃতি পাবে । আমেরিকায় বেশিরভাগ চাকরিই নেটওয়ার্কের মাধ্যমে পূরণ হয়। আমাদের দেশেও কর্পোরেট ওয়ার্ল্ডে প্রায় একই অবস্থা, অন্তত উচ্চ পথগুলোতে। আপনার ব্র্যান্ড ইকুইটি বাড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্ট ইভেন্টগুলিতে অংশগ্রহণ করুন। অংশগ্রহণকারীদের সাথে মেলামেশা ও তথ্যভিত্তিক সংলাপে লজ্জা বোধ করবেন না। অন্যদের আপনার সম্পর্কে বলতে বলুন, যারা আপনাকে জানে। সোশ্যাল মিডিয়াতে সেটা সহজেই করা যায়। সুপারিশ ফরমে আপনার কর্মকাণ্ডের একটা রিভিউ পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের উপাদান হিসেবে সংযুক্ত করতে পারেন। সাইবার জগতে আপনার উপস্থিতি বাড়ান। পেশাদার এবং কর্পোরেট চাকরিজীবীদের জন্য LinkedIn হচ্ছে আপনার পার্সোনাল ব্র্যান্ডকে সমৃদ্ধ করার প্রধানতম সামাজিক মাধ্যম। আপনার কর্ম নৈপুণ্য, অর্জনের সংখ্যা, আপনার কর্মকাণ্ডের প্রোফাইল, এবং পেশাধারী ফটো LinkedIn এ আপডেট করুন। এই কাজে অনেকে টুইটারও ব্যবহার করে এবং পার্সোনাল ওয়েবসাইট বা পোর্টফোলিও তৈরি করে। তবে মনে রাখতে হবে আপনার পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং কেবল অনলাইনে সীমাবদ্ধ নয়, আপনার পরিবার, অফিস, দৈনন্দিন চালচলন, মেলামেশা ও বেশ-ভূষাও আপনার পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের অংশ। ” সুনামই হচ্ছে আপনার সর্বস্ব” ।

পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য আপনি যা কিছু করবেন তা হতে হবে অথেন্টিক এবং নির্ভরযোগ্য(credible)। ব্যক্তির বক্তব্য বিশ্বাসযোগ্য হওয়া তিনটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে- বিশেষজ্ঞতা(expertise), বিশ্বস্ততা (trustworthiness) এবং পছন্দনীয়তা (likability)। অথেন্টিক এবং স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিতি লাভের চেষ্টা করতে হলে, নির্দিষ্ট বিষয়ে আর্টিকেল লিখতে হবে, ব্লগিং এবং বিভিন্ন গ্রুপের সাথে যুক্ত হয়ে তাঁদের সাথে কথা বলতে হবে। অডিয়েন্সের প্রতি সহযোগিতামূলক অ্যাপ্রোচ দেখালেই অডিয়েন্স আপনার প্রতি আকৃষ্ট হবে। আপনি তাঁদের জীবনে মূল্যবান হয়ে উঠবেন। আপনার বলনে এবং চলনে সামঞ্জস্য থাকতে হবে তাহলেই আপনার বক্তব্য বিশ্বস্ততার মাপকাঠিতে উতরে যাবে। আপনি যা বিশ্বাস করেন না বা ধারণ করেন না তা বললে কেউ বিশ্বাস করবে না। আপনাকে প্রচুর লোকের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করতে হবে, তাহলেই আপনি যা বলবেন তা সহজেই প্রচার পাবে এবং বিশেষজ্ঞতা , বিশ্বস্ততা এবং পছন্দনীয়তার সংমিশ্রণে সমাজে আপনার ক্রেডিবিলিটি তৈরি হবে।

অনেকে পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংকে কেবলমাত্র বিখ্যাত হওয়ার উপায় হিসেবে দেখে। জীবন থেকে আপনি কী পেতে চান আপনার ব্যক্তিগত উদ্দেশ্যকে সে অনুযায়ী নির্মাণ করবেন (Jim Joseph;2014)। কেবল বিখ্যাত হওয়া নয়, জীবনে যা কিছু করতে চান তা করে কেবল সফল হওয়াই নয়, একটি সার্থক জীবনও পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের লক্ষ্য হওয়া উচিত। সফল এবং সার্থক জীবনের অধিকারীরা পরবরর্তীতে সকলের নিকট বেঞ্চমার্ক (Benchmark) হয়ে থাকেন।(চলবে)

>> ড. মীজানুর রহমান
>> অধ্যাপক মার্কেটিং বিভাগ
>> ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

Please Share This Post in Your Social Media

এই জাতীয় আরো নিউজ

© All rights reserved © 2020 bd-bangla24.com

Theme Customized By Subrata Sutradhar